জিয়াউর রহমানের হত্যাকারী কে ?? জবাবে যা বললেন আইনমন্ত্রী – বিচার কেন হলো না ?

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জিয়াউর রহমানকে তার নিজের লোকেরাই হত্যা করেছে। সেজন্যই এ হত্যার বিচার হয়নি। আমাদেরকেও বিচার করতে দেয়নি।

শুক্রবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার দূর্গাপুর টানপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

দুস্থ শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ উপলক্ষে আখাউড়া পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এ জনসভার আয়োজন করে।

খালেদা জিয়া ও তার পরিবারের দুর্নীতির কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকার সময় নিজের আখের গোছাতে ব্যস্ত ছিলেন। আমাদের রক্তচোষা টাকাগুলো বিদেশে পাচার করেছেন। পৃথিবীর বড় বড় কাগজে এখন খালেদা জিয়া ও তার ছেলেদের দুর্নীতির কথা লোখা হচ্ছে।

নির্বাচন প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, সংবিধান অনুযায়ী বর্তমান সরকারের অধীনেই আগামী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এবং এভাবে গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত থাকবে। এর বাইরে কিছু হবে না।

জনসভায় উপস্থিত জনসাধারণকে উদ্দেশ্য করে মন্ত্রী বলেন, অাপনারা অনেক কিছু দেখেছেন। আপনাদেরকে অনেকেই বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করবে। তবে এসব পাতলা ষড়যন্ত্রে বিভ্রান্ত হবেন না।

মন্ত্রী আরও বলেন, ১২ জানুয়ারি বাংলাদেশের জন্য ঐতিহাসিক দিন। এ দিনে বাংলাদেশে গণতন্ত্র সুপ্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ‘কথিত’ তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে মর্যাদার দেশে পরিণত হয়েছে।

আখাউড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল্লাহ্ ভূঁইয়া বাদলের সভাপতিত্বে জনসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা, আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক জয়নাল আবেদীন, যুগ্ম আহ্বায়ক আবুল কাশেম ভূঁইয়া ও কসবা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদুল কায়সার প্রমুখ।

অসমতা রুখতে বিশ্ব বিবেককে জাগ্রত করতে হবে : মেনন

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ধর্ম বৈষম্য এবং অর্থনৈতিক অসমতা এখন বিশ্বের প্রধান চ্যালেঞ্জ। অর্থনৈতিক অসমতা রুখতে বিশ্ব বিবেককে জাগ্রত করতে হবে।

শুক্রবার সকালে দক্ষিণ এশিয়া ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বামপন্থি নেতাদের পরবর্তী বিশ্ব ভাবনা শীর্ষক সম্মেলন ‘এশিয়ান অ্যাসেম্বলি অব পিপলস্ মুভমেন্ট অ্যান্ড অর্গানাইজেশন’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে এসব কথা বলেন তিনি।

রাশেদ খান বলেন, ‘বর্তমানে মাত্র ৮ জন লোকের হাতে চলে গেছে গোটা বিশ্বের ৫০ ভাগেরও বেশি সম্পদ। এটি মানবতার চরম লঙ্ঘন। এই অর্থনৈতিক অসমতা আজ এশিয়া ও দক্ষিণ এশিয়াতেও চলে এসেছে। যা খুবই উদ্বেগজনক।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ভারতের পিপলস্ সাইন্স মুভমেন্টের সভাপতি প্রবীর পুরোকায়স্ত। আর মূল বিষয়বস্তু উপস্থাপন করেন নেপালের সিপিডির চেয়ারম্যান ও সেদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মি. মাধব কুমার নেপাল।

অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ কমিউনিষ্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমও বক্তৃতা করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বিশ্বব্যাপী প্রভুত্ববাদ, কর্তৃত্ববাদ ও নব্য উদার অর্থনীতি এবং এর প্রভাব নিয়ে আলোচনা করেন।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাপী এক শ্রেণির মানুষ আজ কঠোর শ্রম দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে চলছে। অন্যদিকে আরেক শ্রেণির হাতে রয়েছে অস্ত্র, পুঁজি ও শক্তি। এক শ্রেণির মানুষ দিন রাত পরিশ্রম করে দেশের, পরিবারের, প্রতিবেশীদের উন্নয়ন ঘটাচ্ছে, অন্যদিকে পুঁজিবাদী শক্তি দুর্বল শ্রমজীবী মানুষদের ওপর দমন নিপীড়ন চালাচ্ছে।

নেপালের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাধব কুমার তার বক্তব্যে বর্তমান অনলাইনের যুগে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা সব বাম শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান।

সিপিবির মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, বর্তমান নব্য বিশ্বায়ন ভাবনার বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার থাকতে হবে।

উল্লেখ্য, আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ মার্চ পর্যন্ত ভেনিজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে বামদলভিত্তিক পরবর্তী সম্মেলন ‘ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অব পিপলস্ মুভমেন্ট অ্যান্ড অর্গানাইজেশন’ অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *