যেখান থেকে আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন খালেদা জিয়া

তাবলিগ জামাতের ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপের আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

গুলশানের নিজ বাসভবন ফিরোজাতে বসেই টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন তিনি।

রোববার বেলা ১১টায় চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারি অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, বিগত বছরের ন্যায় এবারও আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। তিনি বাসভবন ফিরোজায় বসে আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন।

উল্লেখ্য, আগে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে সরাসরি অংশ নিতেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তবে ২০১৪ সাল থেকে রাজনৈতিক পরিবেশ অনুকূলে না থাকায় আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে টঙ্গী যাচ্ছেন না তিনি।

২০১৮ সাল বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্ববহ : মেনন

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ২০১৮ সাল বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্ববহ। এবারে নির্ধারিত হবে দেশ উন্নয়নের ধারায় এগুবে নাকি আবার ৫০ বছরের জন্য পিছিয়ে যাবে। শনিবার কুমিল্লা সদরের ছাতিপট্টিতে কর্মসংস্থান ব্যাংক ভবন মিলনায়তনে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি কুমিল্লা জেলা আয়োজিত পার্টির ২১ দফা কর্মসূচিকে এগিয়ে নিতে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপি চুরি করতে পারবে কিন্তু চোর বলা যাবে না, ধরাও যাবে না। সেই দল যদি কোনক্রমে আবার ক্ষমতায় আসে তাহলে গাছের শেকড়সহ উপড়ে খেয়ে ফেলবে। দেশের মানুষকে বিএনপির দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন ও সাম্প্রদায়িকতা জঙ্গিবাদের রাজনীতিকে আরেকবার পরাজিত করে এদেশ থেকে তাদের চিরতরে বিদায় করতে হবে।

মেনন বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে কোনো বিতর্ক নেই। কিন্তু এই উন্নয়নকে অন্তর্ভুক্তিকরণ করা না গেলে, এই উন্নয়নে জনগণের অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করা না গেলে তার সুফল মিলবে না। তিনি বলেন, এদেশের তরুণরাই বিভিন্ন সময় তাদের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যকে উৎসর্গ করে দেশের মানুষকে আন্দোলন-সংগ্রামে সংগঠিত করেছে। সেই তারুণ্যই যদি মাদকাসক্তে আচ্ছন্ন হয়, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের পথ অনুসরণ করে সেটা হবে দেশের জন্য সবচেয়ে দুঃখের কারণ। তিনি তরুণদের আধুনিক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতে আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ওয়ার্কার্স পার্টির ২১ দফা দেশের মানুষের কাছে আধুনিক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের কর্মসূচিকে তুলে ধরেছে। কুমিল্লা জেলা সম্পাদক আহসানুল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য কামরুল আহসান। তিনি ৩ মার্চের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশকে সফল করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এই সমাবেশকে জনগণের সমাবেশে পরিণত করতে হবে। আরও বক্তব্য রাখেন ওয়ার্কার্স পার্টি জেলা কমিটির সদস্য রুস্তম আহমেদ, সাজ্জাদুর রহমান মাসুম, চলচ্চিত্র সংগঠক রায়হান, যুব মৈত্রী যুগ্ম আহ্বায়ক ডা. তুহিন, তাপস চন্দ্র দাস। সভা পরিচালনা করেন যুব মৈত্রীর আহ্বায়ক আবু বক্কর সিদ্দিক মামুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *