বিপিজেএ নির্বাচনের ফল প্রকাশ : কে হাসলো বিজয়ের হাসি জেনে নিন ক্লিক করে

বাংলাদেশ ফটোর্জানালিষ্ট অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রাম শাখার নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। এতে দৈনিক সমর পত্রিকার ফটো এডিটর মুক্তিযোদ্ধা মনজুরুল আলম মঞ্জু সভাপতি এবং দৈনিক ইত্তেফাকের সিনিয়র ফটো সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।

শনিবার (১৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিষ্ট অ্যাসোসিয়েশেনের বার্ষিক সাধারণ সভায় সদস্যদের ভোটে দুই বছরের জন্য সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ পূর্ণাঙ্গ কমিটি নির্বাচন করা হয়।

মনজুরুল আলম মঞ্জুর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত বার্ষিক সাধারণ সভায় নির্বাচন পরিচালনা করেন বাংলাদেশ ফটো জার্নালিষ্ট অ্যাসোসিয়েশনের উপদেষ্টা মঞ্জুর কাদের মঞ্জু।

নির্বাচিত অন্য সদস্যরা হলেন সহ সভাপতি মো. রাশেদ (দৈনিক সমকাল), যুগ্ম সম্পাদক মিয়া আলতাফ  (দৈনিক পূর্বকোণ), সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মর্তুজা (দৈনিক বণিক বার্তা), অর্থ সম্পাদক মো. হেলাল সিকদার (দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ), সহ অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ হোসাইন (দৈনিক কর্ণফুলী), প্রদর্শনী ও সংস্কৃতিক সম্পাদক সাইদুল আজাদ (দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চ), ক্রীড়া সম্পাদক মিনহাজ উদ্দিন ঝন্টু (ফোকাস বাংলা), প্রচার সম্পাদক আখতার হোসাইন (দৈনিক নয়াদিগন্ত) দপ্তর সম্পাদক এম হায়দার আলী (দৈনিক পূর্বদেশ), নির্বাহী সদস্য মাসুমুল হক (দৈনিক পিপলস ভিউ), এম এ হান্নান কাজল (দৈনিক নয়াবাংলা), বাচ্চু বড়ুয়া (চিটাগাং নিউজ), রাজু দিক্ষিত ( দৈনিক মানবজমিন)।

শিশু অপহণের দায়ে ৩ জনের যাবজ্জীবন

চার বছরের এক শিশুকে অপহরণের অভিযোগে ৮ বছর আগে দায়ের করা একটি মামলায় তিন জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন চট্টগ্রামের একটি আদালত। পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। খালাস দেওয়া হয়েছে একজনকে।রোববার (১৪ জানুয়ারি) নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মো.মোতাহির আলী এ আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- হারাধন নাথ (৫৮), শেফালী বেগম (৪৫) ও আবদুল আজিজ (৫৪)। এরমধ্যে হারাধন ও শেফালী বেগম পলাতক রয়েছেন। রায় ঘোষণার সময় আবদুল আজিজ আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তিনি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ওয়ার্ড বয় হিসেবে কর্মরত| একই মামলার আসামি শফিউল আজমকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

ট্রাইব্যুনালের পিপি এম এ নাসের জানান, আসামিদের প্রত্যেককে অপহরণের দায়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৭ ও ৭/৩০ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা দিতে না পারলে আরও ৬ মাস কারাভোগ করতে হবে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ছেলের সঙ্গে নাস্তা করার কথা বলে ২০০৯ সালের ১৫ জানুয়ারি বিকেলে ৪ বছরের শিশু রাকিব চৌধুরীকে নিয়ে যায় হারাধন। চমেক হাসপাতালের সামনে ভাসমান আয়া শেফালী বেগমের কাছে বিক্রি করে দেয়। আবদুল আজিজের সাথে মামলার বাদি মিসবাহুল ইসলামের পরিচয় ছিল। সেই সূত্র ধরে আসামিরা যোগসাজশে ওই শিশুকে অপহরণ করে।

এ ঘটনায় ১৭ জানুয়ারি নগরীর বায়েজিদ থানায় মামলা দায়ের করা হয়। ২০০৯ সালের ১৫ এপ্রিল অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। এই বছরের ৩ নভেম্বর অভিযোগ গঠনের পর রাষ্ট্রপক্ষ ১৯ জন সাক্ষীর মধ্যে ৬ জনকে আদালতের সামনে উপস্থাপন করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *